নওগাঁ

মহাদেবপুরে ভূয়া সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী

 

মো.মাহবুবুউল আলম,মহাদেবপুর(নওগাঁ) : নওগাঁর মহাদেবপুরে এক মাদক সেবী ভূয়া সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী করতে গিয়ে মটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যায়। ওই মাদক সেবীর মটরসাইকেল থানাপুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যান। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২১ মার্চ সন্ধ্যে ৬টার দিকে উপজেলা সদরের বুলবুল সিনেমা হল সংলগ্ন সুরমা মাল্টিপারপাস কো-অপরেটিভ সোসাইটি লি: এর অফিসে। এব্যাপারে ওই অফিসের এরিয়া ম্যানেজার মো. সাদ্দাম হোসেন মহাদেবপুর সদরের দুলালপাড়া (আখ সেন্টার) মতিউর রহমান বাচ্চুর ছেলে মশিউর রহমান মিঠু((৪৪) এর নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে প্রকাশ, মশিউর রহমান মিঠু বুলবুল সিনেমা হলের পাশে পূর্ব দিকে বিশ্বাস নিকেতনে আমার অফিসে আসিয়া ৫০হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। এরিয়া ম্যানেজার সাদ্দাম হোসেন জানান, মশিউর রহমান মিঠু অফিসে এসে বলেন, মহাদেবপুরের ৪ প্রেসক্লাব এক হয়ে একটি প্রেসক্লাব হয়েছে। কাল আমাদের অভিশেখ অনুষ্ঠান। নওগাঁ-৩ আসনের এমপি প্রধান অতিথি। আমি বিষয়টি সাংবাদিক নেতা বরুন মজুমদারের নিকট ফোনে অভিশেকের কথা জানতে চাইলে তিনি মিঠুকে আটকিয়ে রাখতে বলেন,আমরা আসতেছি। কিছু ক্ষণের মধ্যে কয়েকজন সাংবাদিক নেতা অফিসে উপস্থিত হলে মিঠু টের পেয়ে মটরসাইকেল রেখে পালিয়ে যায় এবং অফিসের কয়েক জন্য তার পিছে ধাওয়া করে তাকে ধরতে পারেনি। সাংবাদিক নেতা বরুণ মজুদার জানান, মশিউর রহমান মিঠু একজন মাদকসেবী। মাদক মামলায় সে জেল হাজতে ছিলো এবং মাদকের পয়সা জোগার করতে কখনও চ্যানেলের সাংবাদিক ,কখনও পত্রিকার সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজী করে আসছে। মহাদেবপুর প্রেসক্লাবের অর্থ সম্পাদক আয়নুল ইসলাম জানান, মশিউর মিঠু একজন নেশাখোর। নেশার টাকা জোগাড় করতে সে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে চাঁদাবাজী করে আসছে।এব্যাপারে মহাদেবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গৌতম কুমার মহন্তের সাথে কথা হলে তিনি জানান,মশিউর রহমান মিঠু আমাদের মহাদেবপুর প্রেসক্লারে কোন সদস্য নয় এবং তার সাথে মহাদেবপুর প্রেসক্লাবের কোন সদস্যর সখ্যাত নেই। মহাদেবপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েলের সাথে কথা হলে তিনি জানান, মশিউর রহমান মিঠুর নামের অভিযোগ পাওয়া গেছে এবং তার একটি নীল রংএর ১৫০সিসি পালসার মটরসাইকেল থানায় জব্দ করা রয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। অপরদিকে একটি প্রভাবশালী মহর মশিউর রহমান মিঠুকে মামলার আওতায় না আনার জন্য জোর তদবীর চালাচ্ছে বলে সমালোচকদের অভিমত। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close