গোদাগাড়িশিরোনাম-২

গোদাগাড়ীতে চুরির অপবাদে মধ্যযুগীয় কায়দায় স্কুলছাত্রকে নির্যাতন

 

মুক্তার হোসেন, গোদাগাড়ী(রাজশাহী): রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে চুরির অপবাদে মধ্যযুগীয় কায়দায় মারুফ আলী (১৩) নামের এক স্কুলছাত্রকে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার কাঁকনহাট এলাকার রাজারামপুরে চাত্রায় এই ঘটনা ঘটে। স্বর্ণালঙ্কার চুরির অভিযোগ তুলে রোববার (২২ মার্চ) বিকেলে ৪টা থেকে রাত ১০ পর্যন্ত এমন নির্যাতন চালায় জিয়ারুল ও রুমেল আলীসহ চারজন।বিষয়টি নিশ্চিত করে রাজারামপুর পাকড়ী ইউনিয়নের সদস্য জালাল উদ্দিন বলেছেন, চুরির অভিযোগে সন্দেহভাজন মারুফকে ধরে নির্যাতন করা হয়েছে। রডের আঘাত ও গরম পানি ঢালা হয়েছে। এনিয়ে স্থানীয় কাকঁনহাট (তদন্ত কেন্দ্র) ফাঁড়ির পুলিশ এসে পরিদর্শন করে গেছে। এছাড়া ভুক্তভোগির পরিবার গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।আহত মারুফকে পরে গোদাগাড়ী ৩১ শয্যা বিশিস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মারুফ ওই এলাকার গোলাম মুর্তৃজার ছেলে। এছাড়া রাজারামপুর চাত্রা দারুল হাদিস আলীম মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী। ঘটনার পরে গোদাগাড়ী থানায় রুমেল আলী, পিয়ারুল ইসলাম, সিহাব আলী ও তোফায়েল হোসেনের বিরুদ্ধে আহত স্কুলছাত্র মারুফের বাবা অভিযোগ করেন।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নির্যাতনকারী রমেল আলীর স্ত্রী চুমকি খাতুনের আংটি ও ঝুমকা মিলে চার আনার স্বর্ণের জিনিস হারিয়েছে। এর সন্দেহে মারুফকে মারধর করে তারা। মারধরের সময় লোহার রঢ, গরম পানি, বৈদ্যুতিক শর্ক দেওয়া হয়। এক পর্যায়ে মারুফের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তারা ছেড়ে দেয়। পরে পরিবারের লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল সরকার বলেন, তারা আমার কাছে এসেছিল। শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাদের অভিযোগ শুনে থানার ওসিকে (গোদাগাড়ী থানা) জানানো হয়। এছাড়া চিকিৎসা নিতেও বলা হয়।বিষয়টি থানার ওসি দেখছেন।গোদাগাড়ীর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খাইরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি।বিষয়টি দেখা হচ্ছে। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close