সাহিত্য ও সংস্কৃতি

জীবনের গল্প

সবনাজ মোস্তারী স্মৃতি

 

আজ আমি তোমাদের গল্প শুনাবো।
এসো বসো সবাই।
আমাকে ঘিরে বসো।
আকাশের গল্প,নদীর গল্প অনেক শুনিয়েছি আজ তোমাদের জীবনের গল্প শুনাবো।আমার জীবনের গল্প।
তোমরা সবাই আমাকে ঘিরে বসো।গোলমাল করো না। মনোযোগ দিয়ে শুনো-
অামার বয়স তখন ১৮- ১৯ এর মাঝামাঝি।এই বয়সটা প্রেমে পড়ার বয়স।আমিও ভিষন ভাবে প্রেমে পড়েছিলাম।সংক্রমন হয়ে ছড়িয়ে গিয়েছিলো আমার মনে প্রেম নামের অনুভূতিটা।
অন্য মেয়েদের মত আমিও তখন নিজেকে বারবার আয়নায় দেখতাম। কোন জামাটা,কোন শাড়িটাই আমাকে বেশি মানাবে তা ভাবতাম। মাঝে মাঝে তার কথা ভেবে একা একাই হেসে উঠতাম,কখনো বা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকতাম উদাস ভাবে,কখনো কবিতা লিখে খাতার পাতা ভরে দিতাম।
প্রেম নামের সংক্রামনে তখন আমি খুব ভালোভাবেই আক্রান্ত হয়েছিলাম।আমার উনিও প্রবল ভাবে এ প্রেম রোগে আক্রান্ত হয়েছিলো।
শত পাগলামি ছিলো আমাদের।আমাদের দেখা হত খুব কম, কথা হত কম।কারন তখনতো এত মোবাইল ফোন, ফেসবুক,টুইটার হটসএ্যাপ এসব ছিলো না।আমাদের কথা হত চিঠিতে। প্রতি সপ্তাহে তাকে চিঠি লিখতাম আমি। সেও লিখতো,কোনো এক সপ্তাহে চিঠি না পেলে কতই না অভিমান জমা হত দুজনের মাঝে।
আমরা দুজন থাকতাম দু ‘শহরে। তার আর আমার শহরের দুরুত্ব ছিলো অনেকটা তবুও আমাদের মাঝে কোনো দুরুত্ব ছিলো না।আমরা ছিলাম খুব কাছাকাছি।
সময়চক্র পূর্ন হবার আগেই সে আর আমি আবার এক সাথে হতাম। আমরা কি তখন আমাদের ছিলাম? জানি না এখনো।তবে কিসের এত মায়া ছিলো,এত টান! সব কিছুই কি তখন বয়সের সাথে মোহ ছিলো?নাকি ক্ষনিকের আর্কষন!
জানি না এটা প্রেম ছিলো নাকি ভালোবাসা!
কিসের মায়ায় আটকিয়েছিলাম আমরা দুজন জানা ছিলো না।
প্রেমের জাকজমক বসন্ত বাতাস বইতে বইতেই এলো এক কাল বৈশাখি ঝড়।প্রচন্ড রাগ আর অভিমানে ডুবে গেলাম আমি তার উপর কোনো কারন ছাড়াই।সে অভিমান ভাঙ্গানোর জন্যই ছুটে আসছিলো আমার কাছে, আমার শহরে কিন্তু তার আর আসা হয়নি আমার কাছে।আমার করা সমস্ত রাগ আর অভিমান বুকের মাঝে পুষে নিয়ে সে পাড়ি জমিয়েছিলো না ফেরার দেশে।তার চলে যাবার দশ দিন পর তারই এক বন্ধুর কাছে জানতে পেরেছিলাম সে গত হয়েছে।সেদিন আমি কাঁদতে পারিনি শুধু ঘরের দরজা বন্ধ করে পাগলের মত তার লেখা চিঠিগুলো হাতে নিয়ে তাকিয়ে ছিলাম। যেখানে লেখা ছিলো সারাজীবন এক সাথে থাকার কথা। আমাদের সংসার বাধার কথা।এক নিমিষে একটা সড়ক দুর্ঘটনা শেষ করে দিয়েছিলো আমাদের সাজানো স্বপ্ন।কিছুই করতে পারিনি, শেষ বারের মত তাকে একবার দেখতেও পাইনি।দেখতে দেখতে ত্রিশ বছর পার হয়ে গেছে।আমার চুলে পাক ধরেছে,চোখে চশমার পাওয়ার বেড়েছে।তবুও তার সাথে কাটানো স্মৃতিগুলো স্পষ্ট চোখের সামনে ভাসে আমার।
শুনলে জীবনের গল্প?এরকম হাজারো গল্প রয়েছে মানুষের জীবনে।অন্য একদিন শুনাবো কেমন!

Close