চারঘাটশিরোনাম-২

ফোনে কল পেয়েই চারঘাটে খাদ্যসামগ্রী পাঠালেন আসাদুজ্জামান আসাদ

 

মো.সজিব ইসলাম, চারঘাট: ফোনে কল পেয়েই রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায় খাদ্যসামগ্রী পাঠিয়েছেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) উপজেলার চকগোচর গ্রামে আসাদুজ্জামান আসাদ এর দেওয়া এসব খাদ্যসামগ্রী বিতরন করেছেন রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সদস্য সুরোজিত কুমার ঘোষ। এই ছাত্রলীগ নেতার বাড়িও একই গ্রামে।
করোনা ভাইরাসের এই দূর্যোগপূর্ণ সময়ে বাংলাদেশ সতর্ক অবস্থায় থাকতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা বিভিন্ন পদক্ষেপ দ্রুত গ্রহণ করেছেন এবং জনগণকে ঘরে থাকার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এ অবস্থায় যাতে দেশের অভ্যন্তরে খাদ্যের অভাবে দিনমজুর ও নিম্ন আয়ের মানুষরা পড়েছেন খাদ্যের সংকটে।
গ্রামের এসব দিনমজুর কর্মহীন অসহায় মানুষের কথা ভেবে গতকাল সোমবার (৬ এপ্রিল) রাত ৯ টায় রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সদস্য সুরোজিত কুমার ঘোষ ফেসবুকে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদকে ম্যাসেজ পাঠান। কিছুক্ষণের­ ভেতর আসাদুজ্জামান আসাদ ম্যাসেজের উত্তরে বলেন,তুমি আমাকে ফোন কল দাও। সুরোজিত কল দিতেই,আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আগামী কাল সকাল ১০ঃ ৩০ মিনিটে তোমার কাছে পৌঁছে দিব। মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) সকালে জননেতা আসাদুজ্জামান আসাদ, ছাত্রনেতা সুরোজিতের কাছে আর্থিক অনুদান তুলে দিয়ে অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়াতে বলেন এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার ৩১ টি নির্দেশনা সম্বলিত লিফলেট বিতরণ করে জনগণকে সচেতন করার জন্য দিক নির্দেশনা দেন। সেই নির্দেশনা মোতাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা সুরোজিত, ছাত্রলীগ কর্মী অমিত কুমার ঘোষকে নিয়ে শলুয়া ঘোষপাড়া এবং শলুয়া ইউনিয়নের চকগোচর গ্রামে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।
এই বিষয়ে ছাত্রনেতা সুরোজিতের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সারাদেশে লক ডাউন চলছে, এমতাবস্থায় আমাদের এলাকার কিছু দিনমজুর কর্মহীন হয়ে পড়ায় মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন। বিষয়টা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, মানবতা ও ভালোবাসার ফেরিওয়ালা জননেতা আসাদুজ্জামান আসাদ ভাইকে ফেসবুকে এসএমএসের মাধ্যমে জানাতেই উনি সাড়া দেন এবং আমার কাছে আজ সকাল ১০:৩০ মিনিটে পৌঁছে দেবেন বলে বলে জানিয়েছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় সকালে আমাকে ফোন দিয়ে আমার কাছে নিজে এসে আর্থিক অনুদান দিয়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলেন। তিনি আরো বলেন, এলাকার কেউ যেনো খাদ্যাভাবে না থাকে,কোন মানুষ যদি কষ্টে থাকে তবে আমাকে জানাতে লজ্জাবোধ করবে না।রাজশাহীর মানুষ আমার ভাই,প্রয়োজনে এক প্লেট ভাত ভাগ করে খাব তবুও শেখ হাসিনার বাংলায় কাউকে না খাইয়ে কষ্ট করতে দিবনা
খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে প্রতিটি অসহায় পরিবারকে ৫ কেজি চাউল,১ কেজি সোয়াবিন তেল, ৫০০ গ্রাম ডাউল,১ কেজি আলু, ৫০০ গ্রাম পেঁয়াজ ও একটি করে সাবান দেওয়া হয়। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close