নাগরিক মতামত

বাংলাদেশে লকডাউন শিথিল ঘোষণা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত

সারাদেশে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে সংক্রমণ ও মৃত্যু যখন ক্রমবর্ধমান তখন ‘লকডাউন’ শিথিল করার জন সরকারি  ঘোষণা তীরে এসে তরী ডোবার শামিল। অবিবেচনাপ্রসূত ও আত্মঘাতী।

গত ২৪ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৭৮৬জন সর্বমোট আক্রান্ত ১০৯২৯ জন, মৃত্যু হয়েছে ১ জনের সর্বমোট মৃত্যু হয়েছে ১৮৩ জনের, সুস্ত হয়েছে ১৯২ জন সর্বমোট সুস্থ হয়েছে ১৪০২ জন এমন এক ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সরকারি  কোন বিশেষজ্ঞের পরামর্শের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবং নিচ্ছে।

তবে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সভাপতিত্বে যে সভার বরাত দিয়ে সরকারকে এ পরামর্শ দেওয়া হয় তাতে কোনো বিশেষজ্ঞের উপস্থিতি দেখা যায়নি। করোনা ভাইরাসের কারণে অর্থনীতিকে সচল করার যে যুক্তি আনা হচ্ছে তাও গ্রহণযোগ্য নয়।

সরকার ও অর্থমন্ত্রী নিজেও এ ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী এবং আগামী বছরের জন্য বর্তমান বছরের চাইতেও বড় বাজেট করতে চলেছেন। বিশ্বে এমন পরিস্থিতি নয় যে পোশাকশিল্প তার বাজার হারাবে। অন্যদিকে ঈদের এক বছরের ব্যবসার জন্য শপিংমলগুলো দেউলিয়া হয়ে যাবে না। বরং যেটা প্রয়োজন তাহলো ছোট ব্যবসা, শিল্প, কৃষি, খামার ইত্যাদি ক্ষেত্রে প্রণোদনা দেওয়া।

প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে যে প্রণোদনা প্যাকেজগুলো ঘোষণা করেছেন তাকে এ দিকে বিস্তৃত করা যুক্তিযুক্ত হবে।

, যুক্তরাষ্ট্র বা যুক্তরাজ্য নয়, চীন, ভিয়েতনাম,ইটালি, দক্ষিণ কোরিয়া এমনকি পাশের দেশ ভারত যেভাবে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে সম ব্যবহারের চরিত্র বৈশিষ্ট্য দেশ হিসেবে বাংলাদেশ তার উদাহরণ নিতে পারে।

করোনা সংক্রমণ নিন্মগামী না হওয়া পর্যন্ত ‘লকডাউন’ সহ নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করাকে কঠোরভাবে প্রয়োগের  প্রয়োজন।

লেখক : সাংবাদিক ও সমাজকর্মী।

Close