অর্থ ও বাণিজ্যপুঠিয়াশিরোনাম

শুক্রবার গাছ থেকে নামছে রাজশাহীর আম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রশাসনের সময়ানুযায়ী শুক্রবার (১৫মে) থেকে আমপাড়া শুরু করবেন বাগান মালিকরা। তাই শেষ মুহুর্তে অস্থায়ী আম আড়ৎগুলোতে কেনা-বেচার জন্য প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে।
তবে বর্তমানে সারাদেশে করোনাভাইরাসের প্রভাব বিস্তার করায় আমপাড়ার মৌসুম শুরু হলেও জেলার সর্ববৃহৎ বানেশ্বর আম আড়ৎগুলোতে বিভিন্ন অঞ্চলের ক্রেতাদের আগমন এখনো শুরু হয়নি। যার কারণে বাগান মালিকরা আমের ন্যায্যমূল্যে পাওয়া নিয়ে চরম দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছেন। অপরদিকে অপরিপক্ক ও আমে বিষাক্ত কার্বাইড ব্যবহার প্রতিরোধে বাগান ও আড়ৎগুলোতে সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রেখেছেন স্থানীয় প্রশাসন।
চলতি সপ্তাহের শুরুতে জেলা প্রশাসক এক সভায় স্থানীয় বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের কয়েকটি ধাপে আম ক্রয়-বিক্রয়ের নিদের্শনা দেন। সে নির্দেশনা মোতাবেক ১৫ মে থেকে আর্টি জাতীয় আম পাড়া শুরু হবে। গোপালভোগ আগামী ২০ মে, রানীপ্রসাদ ও লক্ষণভোগ ২৫ মে, হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে, ল্যাংড়া ৬ জুন, আম্রপালি ও ফজলি ১৫ জুন এবং আশ্বিনা আমপাড়া শুরু হবে ১০ জুলাই থেকে।
বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহী জেলার সর্ববৃহৎ আম আড়ৎ বানেশ্বর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আম ক্রয়ের জন্য বিভিন্ন ছোট বড় আড়ৎগুলোতে শেষ মুহুর্তে ধোয়ামোছার কাজ চলছে। আবার কয়েকটি স্থানে নির্মাণ করা হয়েছে অস্থায়ী ভাবে আড়ৎঘর। আর আমের মৌসুম ঘিরে প্রতিবছর আড়ৎগুলোতে প্রায় দেড় হাজার শ্রমিকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়।
এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওলিউজ্জামান বলেন, জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুসারে কোন আম কখন পাড়তে হবে তার একটি দিক নির্দেশনা ক্রেতা-বিক্রেতাদের দেয়া হয়েছে। আম আড়ৎগুলোতে সার্বক্ষণিক আমাদের পক্ষ থেকে মনিটরিং থাকবে। এ ছাড়া কোথাও কোনো অনিয়মের খবর পেলে তৎক্ষনিক আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
স্থানীয় আড়ৎদার রাজু আহম্মেদ বলেন, প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী আগামীকাল সকাল থেকে রাজশাহী জেলায় আম কেনা-বেচা শুরু হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হওয়ায় বিগত বছরের তুলনায় এ বছর বেশীর ভাগ বাগানে ব্যাপক আম ধরেছে। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের বিভিন্ন এলাকায় আমের তেমন চাহিদা পাওয়া যাচ্ছে না।
বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close