শিরোনাম-২সাহিত্য ও সংস্কৃতি

রাগিব আহসান মুন্নার কবিতা ‘ নতুন সকালের অপেক্ষায় ’

অন্ধকার এক সুড়ুঙ্গ, নেই কোন আলোর রেখা,
অদ্ভুত ভয়ের শিহরণ চোখ মেললেই পাব মৃত্যুর দেখা।
অধমের দল পৃথিবীর সন্তান-
মৃত্যু পুরী দেশে দেশে দুনিয়া আজ ভয়াল শ্মশান।
লাশের পাশে নেই স্বজনের আহাজারি-
পরিচয় ছিল না যার সাথে শেষ যাত্রায় সেই কান্ডারি।
এক সাথে, এক হয়ে, যুদ্ধো জেতার কথা,
বাচতে হলে একা থাক, জিততে হলে একলাচল,
যুদ্ধের নতুন কৌশল এক নতুন অভিজ্ঞতা।
যারা ছিল অপরাজেয় বলবান যুদ্ধবা‌জ,
ললাটে যাদের শোভা বাড়াতো মণি-মুক্তার তাজ
তাদের কপালে আতংক আর ত্রাসের ভাঁজ।

মানুষ সবার উপরে, মানুষ সবকিছু সৃষ্টির দাবিদার,
তাই ধংসলীলার এই উপাখ্যান মানুষের সৃষ্টি প্রানঘাতি করোনার।

আমি আজ মানুষ হতে লজ্জাকরি,
মাথানত করা অপরাধী
নদীখাই,বনখাই ,পাহাড়খা্‌ই,
তার পরও ছটপট ক্ষুধার জ্বালায়।
এতদিন যারে ডেকেছ হায়না বলে,
দেখো চোখ মেলে কুৎসিত চেহারার লোভি ভাইরাসরা
মিলছে এক দলে।
মানুষ মারবা-গরিব মারবা-ছিন্নমুলের উপর আঘাত
করতে তাই,
বানিয়েছ গোলাবারুদ-জেট বিমান পারমানবিক
অস্ত্র ক্ষেপনাস্ত্র আয়োজনের অভাব নাই।
দাম্ভিকতা চূর্ণ আজ হুংকার ছাড়! কাগজের বাঘ,
কিন্তু কি আশ্চর্য বনের বাঘ স্বরূপে
বনে ঘুরে কোন বাধন ছাড়া,
খোলা আকাশে চিল উড়ে,পাখি উড়ে
মাঠে চরে গরু পাল।
নির্ভয়ে ঘুরছে পৃথিবীময় সর্বনাশা পঙ্গপাল।

শুধু ঘরবন্দি প্রানিকুলের শ্রেষ্ঠ জীব মানুষের দল,
প্রহর গুনছে তার মুক্তি কখন হবে করোনার মতো
মৃত্যু তুনের বিনাশ ভুতুল।
বেকারের হাহাকার অনাহারে বুকফাটা চিৎকার
একিদেখি চাল চোর,ত্রানচোর,নিরাপদে চলে
মুক্ত নির্বিকার।
কে বাচাঁবে মানুষ,কে দিবে শক্তি,কে বাঁচাবে মানবতা,
বেকুবের দল করে কতো ছল,মরণকালে মহামারি নিয়ে রসিকতা।
সময় ছিল যখন,খেয়াল করোণি তখন
নিয়েছ আতস বাজির গন্ধ,ঘোর কেটে গেলে দেখ চোখ
মেলে
দরজায় দেওয়া খিল রাস্তা তোমার বন্ধ।

Close