সাহিত্য ও সংস্কৃতি

রঙিন প্রজাপতি

সবনাজ মোস্তরী স্মৃতি

 

আজ আকাশ খুব কাছে নেমে এসেছিলো আমার।
মেঘগুলো আমি হাত দিয়ে ছুঁতে পারছিলাম।
আকাশের সমস্ত পাখিরা আজ আমার কাছে এসেছিলো।
তাদের কলরবে ভুলে গেছিলাম আমার পরিচয়।
আমার মনে হচ্ছিলো আমিও তাদের মতই,
ডানাই ভর করে উড়ে বেরাই এদিক ওদিক!
আজ অবাক দৃষ্টিতে আমি আকাশ দেখেছি এবং ছুয়েছি!
অথচ আমার একটি বারের জন্যও তোমার কথা মনে পড়েনি।
মনে পড়েনি একটা সময় তোমাকে ছুঁয়ে আকাশ ছুঁবার বাসনা মেটাতাম।
আজ বিশাল আকাশ আমার কাছে এসেছিলো।
আমি আনন্দে আত্নহারা হয়েছিলাম।
মেঘেদের সাথে, পাখিদের সাথে খেলা করতে করতে আমি ভুলে গেছিলাম পৃথিবীর মানুষের কথা।
নীল আকাশের নীল রং হারিয়ে যখন গোধূলি রং এলো তখন আকাশ আমার কাছে বিদায় নিলো।
আকাশ চলে যাবার পর আমার চোখ গেলো সবুজ দিগন্তের দিকে।
যেখানে দাড়িয়ে আছে জারুল,হিজল, ছাতিম নামের হাজারো গাছ।
সেখানে খেলা করে নানা রং এর প্রজাপতি;
তাদের মাঝে আবার আমার হারাতে মন চাইলো;
আমি এক পা, দু’পা করে এগিয়ে গেলাম তাদের দিকে।
হিজল ফুলে হাত দিতেই কিছু ফুল ঝরে পড়লো আমার পায়ের কাছে।
আমার হাতের উপর এক ঝাক প্রজাপতি এসে বসলো ;
আমি যেনো তাদের রঙিন পাখার মাঝে নিজেকে হারালাম।
নিজেকে সাদা কালো রঙ্গের ভেতর থেকে বের করে প্রজাপতির রঙিন পাখার মাঝে খুজে পেলাম।

Close