জয়পুরহাটশিরোনাম-২

দেহটা তাঁর মালদ্বীপে, মনটা পড়ে আছে প্রিয়ভুমি জয়পুরহাটে

 

জয়পুরহাট প্রতিনিধি : মাদাই হোক আর মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর বা মাহমুদপুর – ঠিকানা একটাই প্রিয়ভুমি জয়পুরহাট। জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপির নিজ ফেসবুক একাউন্টে দেওয়া এক পোষ্টে তিনি এসব মন্তব্য করেন।

জয়পুরহাট কে নিয়ে হুইপ স্বপনের দেওয়া পোষ্টি এতিমধ্যেই ভাইরাল হতে শুরু করেছে। জয়পুরহাট জেলার বিভিন্ন গ্রুপে গ্রুপে ছড়িয়ে পড়েছে তাঁর এই পোষ্টটি।

দেখে নেওয়া যাক কিছিলো তাঁর এই পোষ্টে। হুবহু হুইপ স্বপন এমপির পোষ্ট টি তুলে ধরা হলো –

মাদাই হোক আর মালদ্বীপ,
সিঙ্গাপুর বা মাহমুদপুর –
ঠিকানা একটাই প্রিয়ভুমি ….

কয়দিন আগে সিঙ্গাপুর প্রবাসী জহুরুল সাহেবর বিষয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেবার পর সেখানে কমেন্টে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবার জন্য আকূতি জানান মালদ্বীপ প্রবাসী জাহিদুল ইসলাম। তিনি আমার সাথে হোয়াটস আপে কথা বলে ১৫,৩০০ টাকা পাঠিয়ে খুব লজ্জা নিয়ে বলেছেন, ভাই বেশী পাঠাতে পারি নি, শখ ছিল আরো দেব, কিন্তু পারলাম না।

তাঁর আকূতির মাঝে অনূভব করলাম, দেহটা তাঁর মালদ্বীপে, মনটা পড়ে আছে প্রিয়ভুমি জয়পুরহাটে। হয়ত নিজের গ্রাম কালাই উপজেলার পুনট ইউনিয়নের মাদাই গ্রামে।

একই ভাবে, আমাদের ক্ষেতলাল উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের ধনতলার ছেলে, বর্তমানে সিঙ্গাপুর প্রবাসী জনাব আজিজার রহমান। তিনিও মানবতা ও ভালবাসার টানে গোপীনাথপুর সেফ অতিথিশালায় চিকিৎসারত ৮৫ জন অতিথির জন্য একটি করে গামছা, সাবান, আতর পাঠিয়েছেন তাঁর বন্ধু সোনামুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জনাব সাজ্জাদুল ইসলামের মাধ্যমে।

ক্ষেতলালের সম্ভ্রান্ত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ফুলদিঘির মরহুম নুরুজ্জামান তালুকদারের সন্তান জনাব রোকনোজ্জামান নাহিদ বর্তমানে রাজশাহীর মোহনপুরে উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত। তিনি বেতনের টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা পাঠিয়েছেন গোপীনাথপুরে অতিথিশালায় রোগীর সেবার তরে।

ফুলদিঘির আরেক কৃতি সন্তান, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে অনার্সে প্রথম শ্রেণীতে তৃতীয় ও মাস্টার্সে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হওয়া মেধাবী তরুণ জনাব শাহজাহান আলী আমার সাথে যোগাযোগ করে করোনা পজিটিভদের জন্য ঈদের দিনের খাবার দিতে চান। আমি তাঁকে জানাই যে, এখন খাবার দিচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ, তারা ঈদের দিন ইমপ্রুভ ডায়েট দেবেন। বরং অন্য কিছু চিন্তা করলে ভাল হয়। তিনি ঈদের পরের ৫ দিন সকলকে ডিম, দুধ ও ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার উপহার দেবেন।

আমার এপিএস আসিফ হাসান ( সিনিয়র সহকারী সচিব ) এবং আমার রাজনৈতিক সহকারী এডভোকেট মোর্শেদ আলম তাদের ঈদ বোনাসের টাকা থেকে ৫+৫ = ১০ হাজার টাকা আমার হাতে তুলে দিয়েছেন করোনা মোকাবেলায় মানবিক সহায়তা হিসেবে। এর মধ্যে আসিফ জয়পুরহাটের সন্তান নয়, আমরা একসঙ্গে কাজ করি।

মাদাই হোক আর মালদ্বীপ, মাহমুদপুর বা সিঙ্গাপুর – শরীর যেখানেই থাক, মন পড়ে থাকে প্রিয় ভুমিতে, মানবতার কল্যাণে।

আল্লাহ্ আপনাদের ওপর বিশেষ রহমত বর্ষণ করুন।

আল্লাহ্ আমাদের সবার প্রতি অতিশয় সদয় হোন। আমীন।

বরেন্দ্র বার্তা/রিআরি/অপস

Close