বাগমারাশিরোনাম-২

বাগমারায় সাংসদের ভাতিজা পরিচয়ে ছাত্রলীগ নেতা রকির বিরুদ্ধে অপহরণ, নারী নির্যাতনের অভিযোগ

 

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে আতাউর রহমান (৩২) নামের কৃষি অফিসের এক কর্মচারীকে নারী বন্ধুসহ অপহরণ করে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দুদিন ধরে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের পর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় পুলিশ ওই কর্মচারীকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। নারী বন্ধুকেও উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ছাত্রলীগ নেতার নাম হাসান তারিক রকি (২৮)। তিনি উপজেলার মাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাঁকোয়া গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় সাংসদের চাচাতো ভাই সাবেক সেনা সদস্য বাবু হোসেনের ছেলে।
এই ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে বলে জানান ওসি আতাউর রহমান। ঘটনার পর থেকেই রকি পলাতক রয়েছেন। পুলিশ জানান, তারা আসামিকে আটক করার চেস্টা করছেন।
স্থানীয় লোকজন সুত্রে জানা যায়, বাগমারা উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মচারী (এমএলএসএস) আতাউর রহমানের কাছ থেকে জনৈক এক ব্যক্তি টাকা পান। তিনি টাকা উদ্ধারের জন্য স্থানীয় সাংসদের ভাতিজা হাসান তারিক রকির স্মরণাপন্ন হন।
ঈদের পরের দিন গত মঙ্গলবার রাতে রকি তাঁর কয়েকজন সহযোগিকে সঙ্গে নিয়ে মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট এলাকার ভাড়া বাসা থেকে আতাউর রহমান ও তাঁর এক মেয়েবন্ধুকে (২৮) একটি মাইক্রোবাসে করে ধরে নিয়ে আসেন। শিকদারী এলাকার সিঙ্গাপুর প্রবাসী জনৈক আনোয়ার হোসেনের নবনির্মিত একটি ভবনের আলাদা-আলাদা কক্ষে তাঁদের রাখা হয়
এর মধ্যে আতাউর রহমানের চোখ ও হাত বেঁধে একটি কক্ষে রেখে নির্যাতন চালানো হয়। বিষয়টি একজন ব্যক্তি বুঝতে পেরে স্থানীয় ব্যক্তিদের মাধ্যমে থানায় খবর দেন।
খবর পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চোখ ও হাত বাধা এবং আহত অবস্থায় কৃষি অফিসের ওই কর্মচারীকে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। রাতে ওই কর্মচারীর নারী বন্ধুকে সাংসদের ছোট ভাইয়ের সহযোগিতায় উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ওই নারীর স্বজনদের কাছে খবর দেওয়া হলে তাঁরা থানায় এসে তাঁকে নিয়ে যায়।
গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ মে) রাতে আতাউর রহমান বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায় রকি সাংসদের ভাতিজা পরিচয়ে এলাকায় বিভিন্নরকম অপকর্ম করে আসছে।
তবে সাংসদ বা তাঁর স্বজনেরা রকির এসব কর্মকাণ্ডে বিব্রত। তাঁদের কোনো সমর্থনও নেই বলে প্রশাসন এবং সাংসদের লোকজনেরা জানিয়েছেন।
বরেন্দ্র বার্তা/সরা/অপস

Close