বাগমারাশিরোনাম

বাগমারায় শ্বশুর বাড়ির লোকজনের হামলায় নারীসহ পাঁচজন আহত

আব্দুল মতিন, বাগমারা: দ্বিতীয় বিয়ে করার অপরাধে জামাইয়ের বাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাংচুর করেছে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। হামলার ঘটনায় নারীসহ ৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে জাহানারা বিবি (৫৫) কে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। ওই ঘটনার পর থেকেই শ্বশুর বাড়ির লোকজনের অত্যাচারে জামাইয়ের বাড়ির লোকজন পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার যোগীপাড়া ইউনিয়নের নখোপাড়া গ্রামে। ওই ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার যোগীপাড়া ইউনিয়নের নখোপাড়া গ্রামের সাবের আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের সাথে একই গ্রামের মৃত আকবর আলীর কন্যা রিপা আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের সংসারে এক পুত্র সন্তানের জম্ম হয়। স্বামী জাহাঙ্গীর আলম দীর্ঘদিন বিদেশে চাকরী করে কিছু দিন পূর্বে তিনি নিজ গ্রামে ফিরে আসেন। বাড়িতে ফিরার কিছু দিন পর জাহাঙ্গীর আলম ঝিকরা ইউনিয়নের জনৈক ব্যক্তির কন্যাকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই তাদের সংসারে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। প্রথমা স্ত্রীর বাবার বাড়ি গ্রামে হওয়ায় স্বামী জাহাঙ্গীর আলমসহ তার পরিবারের লোকজনের উপর নানা ভাবে নির্যাতন করে। গত সোমবার সন্ধ্যায় (১৬ জুন) জাহাঙ্গীর আলমের শিশু ছেলের সাথে তার ভাইয়ের ছেলের ধস্তাধস্তি হয়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী রিপা আক্তার তার ভাইয়ের স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়ে এবং তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে। জাহাঙ্গীর গালমন্দ করতে নিষেধ করলে তার স্ত্রী বাবার বাড়ি চলে যান এবং তার ভাইদের কাছে জামাই জাহাঙ্গীর আলম তাকে নির্যাতন করছে এমন অভিযোগ জানান।

ঘটনাটি শোনার পর পরই স্ত্রী রিপার চাচা, চাচাত ভাই ও আপন ভাই সবাই মিলে জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও স্বর্নের দুল, হাতের চুড়ি এবং একটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। বাড়ির লোকজন বাঁধা দিতে গেলে তাদেরকে পিটিয়ে জখম করে। তার হামলায় জাহাঙ্গীর আলমের মা জাহানারা বিবি মারাত্বক আহত হন। ওই সময় জাহানারা বিবির দুইটি দাঁত ভেঙ্গে যায়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে বাগমারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে। নিজেদের রক্ষা করতে রাতেই জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী রিফা আক্তার বাদী হয়ে স্বামী জাহাঙ্গীরসহ পরিবারের সদস্যদের আসামী করে ভাগনদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন বলে ভাগনদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহিম জানিয়েছেন।

জাহাঙ্গীল আলমের অভিযোগ দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর পরিবারের লোকজন আমার পরিবারের উপর নানা ভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছে। প্রথম স্ত্রীকে কিছু বলার পূর্বেই শ্বশুর বাড়ির লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে আমার পরিবারের লোকজনদের মারধরসহ নানা ভাবে অত্যাচার করে। তিনি তদন্ত পূর্বক প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানান।

বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close