পুঠিয়াশিরোনাম-২

করোনায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সামাজিক সচেতনতায় কাজ করছে পুঠিয়া ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা

 

মোঃআমজাদ হোসেন, পুঠিয়া: ট্রাফিক পুলিশ বাংলাদেশ পুলিশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি শাখা। করোনা ভাইরাসের মাধ্যমেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সামাজিক সচেতনতা নিশ্চিত করনে কাজ করছে পুঠিয়া ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা।

মহামারী করোনায় ভাইরাসে সড়কপথে গণপরিবহন গুলোতে চালক-যাত্রীদের মুখে মাস্ক দেয়া সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সচেতন করছে পুঠিয়া ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা, মোটরসাইকেল আরোহীদের সামাজিক সচেতনতা করনে মুখে মাস্ক এবং হেলমেট ব্যবহারে সচেতন করছেন পুঠিয়া ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা শুধু তাই নয় কোনো বৈরি আবহাওয়া নেই। ‘রোদ, বৃষ্টি, ঝড় যাই হোক না কেন ট্রাফিক পুলিশ মাঠে (রাস্তায়) থাকছে

চলমান করোনা ভাইরাসের মাঝেও কোনো মুহূর্তেই এরা সেবা থেকে বাইরে থাকে না।’ ভারী বর্ষণেও ছাতা বা রেইন কোর্ট নিয়ে রাস্তায় কাজ করতে হয়। ট্রাফিক পুলিশের অন্যতম প্রধান কাজ হলো ‘ট্রাফিক আইনকানুন’ মেনে চলতে যানবাহনগুলোর চালকদের সাহায্য করা। ‘ট্রাফিক পুলিশ সাধারণ মানুষের সেবার জন্য মহামারী করোনা ভাইরাসের মাঝেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এবিষয়ে পুঠিয়া ট্রাফিক জোনের ইনচার্জ কে এম মেরাজ উদ্দিন বলেন, আমরা চলমান করোনা ভাইরাসে সামাজিক সচেতনতা বিদ্ধির লক্ষে গণপরিবহনের গুলোতে চালক-যাত্রীদের মাস্ক পরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সচেতন করছি মোটরসাইকেল আরোহীদের মুখে দেয়া মাস্কও হেলমেট মাথায় দিতে আমরা সচেতন করছি যে সকল

গণপরিবহন গুলোতে মুখে মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে না, এবং মোটরসাইকেল আরোহীদের মুখে ও হেলমেট মাথায় রাখছে না তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।
বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close