মহানগরশিরোনাম-২

রাজশাহীতে উন্নয়নমূলক কাজের শ্রমিকগণ মানছে না স্বাস্থ্য বিধি

নিজস্ব প্রতিবেদক: অন্যান্য স্থানের ন্যায় রাজশাহী মহানগরীতে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। আজ মঙ্গলবার মোট ৯৩ জনের করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে মহানগরীতে মোট আক্রান্তে সংখ্যা হলো ৯৬৩ জন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নেয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ। সরকার থেকে বার বার বলা হচ্ছে বাড়ির বাহির হতে হলে অবশ্যই মাস্ক পড়ে বাহিরে যেতে হবে। সামাজিক বা শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখতে হবে। রাজশাহী জেলা প্রশাসন থেকেও একই নির্দেশনা বার বার প্রদান করা হচ্ছে। কিন্তু কে শোনে কার কথা। শহরবাসীতো আছেই, এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা উন্নয়ন প্রকল্পের শ্রমিকগণ। তারা কোনভাবেই সরকারের নিদের্শনা মানছে না। তারা এক সাথে জটলা করে কাজ করছে। কারো মুখে নেই মাস্ক।
আজ বুধবার দুপুরের দিকে সিটি বাইপাশে শ্রমিকদের এভাবেই রাস্তার কাজ করতে দেখা যায়। তারা মনের আনন্দে মাস্ক ছাড়াই কাজ করছে। একে অপরের হাত ধরে চলাফেরা করছে। এ বিষয়ে কথা বললে একাধিক শ্রমিক বলে, মাস্ক পড়ে কাজ করতে তাদের সমস্যা হয়। গড়মে ঘেমে নাক বন্ধ হয়ে যায়। ফলে তারা অস্বস্তিতে পড়ে যান। কিন্ত করোনা থেকে বাঁচতে তাদের মাস্ক ব্যবহারের কথা বললে, করোনা তাদের কাছে আসতে পারবেনা বলে জানায়।
এখন করোনা বাতাসে ছড়াচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। তাহলে এমন করে যদি উন্নয়ন প্রকল্পের শ্রমিকরা কাজ করে তাহলে তাদের পাশ দিয়ে যারা চলাফেরা করবে তাদেরও করোনা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে পথচারী হুমায়ন কবীর, মেরাজ, পাভেল ও আলিসহ একাধিক ব্যক্তি আশংখ্যা করছেন।
এদিকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে রাজশাহী মহানগরীতে শতভাগ মাস্ক নিশ্চিত এবং করোনার সংক্রমণ রোধ করতে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার হুমায়ুন কবির, বিপিএম, পিপিএম এর নির্দেশনায় আরএমপি বোয়ালিয়া মডেল থানা এলাকার রাস্তায় রিকশাওয়ালা, ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী,পথশিশু ও শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে মাস্ক বিতরণ শুরু করেছেন। কিন্তু উন্নয়ন প্রকল্পের শ্রমিকদের যদি এর আওতায় না আনা হয় তাহলে কোনভাবেই শতভাগ ফল আসা করা যাবেনা। সিটি বাইপাসসহ সকল উন্নয়ন প্রকল্পের শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে বাধ্য করতে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ করেন নগরবাসী।

বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close