চারঘাটশিরোনাম-২

চারঘাট পৌরসভার ফেলা ময়লা-আবর্জনায় নাকাল পথচারী ও এলাকাবাসী

 

মো: সজিব ইসলাম, চারঘাট: চারঘাট-বাঘা ব্যস্ততম সড়কের পাশে ফেলা হচ্ছে চারঘাট পৌরসভার ময়লা আবর্জনা। দূষণ-দুর্গন্ধের শিকার হচ্ছে হাজার হাজার সর্বস্তরের মানুষ। চারঘাট পৌরসভার ময়লা-আবর্জনায় নাকাল পথচারী ও এলাকাবাসী। দীর্ঘদিন ধরে বিরাজমান এ অস্বস্তিকর পরিবেশ থেকে মুক্তি চায় এসব মানুষ।

চারঘাট-বাঘা আঞ্চলিক মহাসড়ক দিয়ে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে হাজার হাজার মানুষ। চারঘাট-বাঘা সড়কের পৌর এলাকার পল্লীবিদ্যুৎ মোড় থেকে ঈদগাহ মোড় পর্যন্ত রাস্তার পূর্ব পাশে পৌর কর্তৃপক্ষ ফেলছে ময়লা আবর্জনা। প্রতিদিনের ময়লা আবর্জনায় গড়ে উঠেছে ভাগাড়। পৌরসভার পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জড়ো করা ময়লা আবর্জনা ট্রাকে করে ফেলা হয় সেখানে।

চারঘাট-বাঘা মহাসড়কের যে জায়গায় ময়লা আবর্জনা ফেলা হয় সেখানেই রাস্তার পশ্চিম পাশে রয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীর ফায়ারিং প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। আবার ঐ রাস্তা দিয়ে সরদহ সরকারী মহাবিদ্যালয় ও সরদহ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়সহ জেলা উপজেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যেতে হয়। প্রতিনিয়ত ময়লা আবর্জনার দুর্গন্ধ সহ্য করেই যাতায়াত করতে হয় পথচারীদের। বৃষ্টির পানিতে ময়লা আবর্জনা পচে তৈরি হয়েছে অস্বস্তিকর পরিবেশ।

চারঘাটের একটি মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শরীফুল ইসলাম বলেন, প্রতিদিন চারঘাট-বাঘা সড়ক ব্যবহার করে নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ জেলা শহরে যান তিনি। পথিমধ্যে পল্লীবিদ্যুৎ মোড় পার হলেই দুর্গন্ধে বমি আসার উপক্রম হয়। দীর্ঘ দিন ধরে ওই পথ চলতে চলতে তার মত অনেকেই অতিষ্ঠ হয়ে গেছেন। তার অভিযোগ, প্রথম শ্রেণির চারঘাট পৌরসভা এলাকায় রাস্তার পাশের ময়লার স্তূপ সরিয়ে নেয়ার তো কোনো লক্ষণই নেই, উপরন্তু প্রতিদিনই পৌরসভা এলাকার সকল বর্জ্য ফেলা হচ্ছে সেখানে।

পৌরসভার সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পৌরসভার বাইরের এলাকায় একটি ময়লার ভাগাড় তৈরির কাজ চলছে। ভাগাড় তৈরির কাজের মেয়াদ শেষ হলেও ভাগাড়টি এখনো ব্যবহার উপযোগী হয়নি। তাই এখনো ময়লা আবর্জনা রাস্তার পাশে ফেলা হচ্ছে।

চারঘাট পৌর মেয়র জাকিরুল ইসলাম বিকুল বলেন, নতুন আধুনিক ও পরিবেশবান্ধব ময়লার ভাগাড়ের নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে। আগামী ৬ মাসের মধ্যেই ভাগাড়টি ব্যবহার উপযোগী হবে। তখন ময়লা আবর্জনা নিয়ে আর কোনো সমস্যা থাকবে না।
বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close