জাতীয়শিরোনাম

করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ঝরল ৩৪ প্রাণ, শনাক্ত ২৭৭৬

 

বরেন্দ্র বার্তা ডেস্ক: দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে সর্বমোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল তিন হাজার ৫৯১ জনে। শুক্রবার বিকেলে কোভিড-১৯ রোগের হালনাগাদ তথ্য নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমন তথ্য জানা গেছে। এতে বলা হয়, গত একদিনে ১২ হাজার ৮৫৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যাদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৭৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ৭১ হাজার ৮৮১ জন। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক হাজার ৭৫২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৫৬ হাজার ৬২৩ জন। পবিত্র ঈদুল আজহার আগে-পরে করোনার পরীক্ষা কমে যাওয়ায় দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যা কমে এসেছিল। একই সঙ্গে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও কমতির দিকে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু গত দুদিন ধরে সেটা আবার বাড়ছে। মঙ্গল ও বুধবার মৃত্যুর সংখ্যা ছিল চল্লিশের ওপরে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, এর আগে ৩১ জুলাই থেকে গত ১২ দিনে মৃত্যুর সংখ্যা চল্লিশের ওপরে ছিল। বাকি সব দিন দৈনিক মৃত্যু চল্লিশের নিচে ছিল। এর মধ্যে চারদিন মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৩০-এরও কম। গত বছরের শেষ দিনে চীনে উহানে প্রথম করোনা সংক্রমণ দেখা দেয়। পরে মহামারী আকারে সেই ভাইরাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। চীন মাস দুয়েকের মধ্যে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারলেও অনেক দেশ ছয়-সাত মাসেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারেনি। বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ সরকারিভাবে সংক্রমণ শনাক্তের ঘোষণা করে। এখন চলছে সংক্রমণের ষষ্ঠ মাস। এখনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।
ছবি: সংগৃহীত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে সর্বমোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল তিন হাজার ৫৯১ জনে।

শুক্রবার বিকেলে কোভিড-১৯ রোগের হালনাগাদ তথ্য নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এমন তথ্য জানা গেছে।

এতে বলা হয়, গত একদিনে ১২ হাজার ৮৫৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যাদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৭৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল দুই লাখ ৭১ হাজার ৮৮১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক হাজার ৭৫২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৫৬ হাজার ৬২৩ জন।

পবিত্র ঈদুল আজহার আগে-পরে করোনার পরীক্ষা কমে যাওয়ায় দৈনিক নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যা কমে এসেছিল।

একই সঙ্গে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও কমতির দিকে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু গত দুদিন ধরে সেটা আবার বাড়ছে। মঙ্গল ও বুধবার মৃত্যুর সংখ্যা ছিল চল্লিশের ওপরে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, এর আগে ৩১ জুলাই থেকে গত ১২ দিনে মৃত্যুর সংখ্যা চল্লিশের ওপরে ছিল। বাকি সব দিন দৈনিক মৃত্যু চল্লিশের নিচে ছিল। এর মধ্যে চারদিন মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৩০-এরও কম।

গত বছরের শেষ দিনে চীনে উহানে প্রথম করোনা সংক্রমণ দেখা দেয়। পরে মহামারী আকারে সেই ভাইরাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

চীন মাস দুয়েকের মধ্যে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারলেও অনেক দেশ ছয়-সাত মাসেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারেনি।

বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ সরকারিভাবে সংক্রমণ শনাক্তের ঘোষণা করে। এখন চলছে সংক্রমণের ষষ্ঠ মাস। এখনো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।
বরেন্দ্র বার্তা/অপস
সুত্র: যুগান্তর

Close