নাগরিক মতামত

বিচারহীনতার কারণে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে নারীরা

মোঃআমজাদ হোসেন

 

 

নারীর স্বাধীনতা বাড়ার সাথে সাথে ধর্ষণের সংখ্যাও বাড়ছে দ্রুত গতিতে। বাংলাদেশে ১৫ বছর বয়স হওয়ার আগেই শতকরা ২৫ জন মেয়ে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়৷
সারাদেশে বেড়ে চলেছে ধর্ষণের সংখ্যা, তাও আবার অত্যন্ত দ্রুত গতিতে স্বাভাবিকভাবেই ধর্ষণের মতো দুঃস্বপ্ন কোনো মেয়েই দেখতে চান না৷ ধর্ষণের পর যে কোনো নারী এতটাই লজ্জিত এবং আতঙ্কিত থাকেন, যে তিনি ধর্ষক সম্পর্কে কোনো কথা বলতে বা পুলিশের কাছে গিয়ে সে অভিজ্ঞতা বা ধর্ষক সম্পর্কে জানাতে ভয় পান, কুণ্ঠা বোধ করেন৷
‘‘অনেক ধর্ষিতা নারীরই বেশ কিছুদিন সময় লেগে যায় নিজের জীবনে ধর্ষণের মতো দুর্ঘটনার কথা কারো কাছে সরাসরি বলতে৷
এর সবচেয়ে বড় মূল কারণ হচ্ছে বিচারহীনতা। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়ার কারণে দোষী ব্যক্তির শাস্তি নিয়ে আস্থা নেই মানুষের। বিচারহীনতা বা দায়মুক্তির সংস্কৃতি বড় কারণ। মূল্যবোধের অবক্ষয় তো আছেই”
উদ্বেগজনক বিষয় হলো যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বাচ্চাদের নিরাপত্তা দিতে পারছে না। প্রতিটি সূচকেই শিশুর প্রতি নিপীড়ন বেড়েছে আমরা শিশুদের নিরাপত্তা দিতে পারছি না। সংবাদপত্রে যেটা বের হয় আসলে ঘটনা তার চেয়েও অনেক বেশী ঘটে। কিন্তু এগুলো জানা যায় না কারণ মানুষ সহজে মামলা করে না কিংবা পুলিশের কাছে যায় না অপরাধীরা মনে করে না যে তাদের শাস্তি হবে।

ধর্ষণের পর নারীদের কী করণীয় – এ বিষয়ে বিষয় নির্দেশিকায় বেশ কিছু করণীয়:-

১. ধর্ষণের পর একা থাকবেন না, কোনো বান্ধবী বা আত্মীয়ার সাথে যোগায়োগ করুন, ঘটে যাওয়া ধর্ষণ নিয়ে কথা বলুন এবং তাঁর সাহায্য নিন৷

২. গোসল, খাওয়া-দাওয়া, ধূমপান, বাথরুম যাওয়া – সম্ভব হলে এ সব বন্ধ রেখে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের কাছে চলে যান৷ অর্থাৎ ধর্ষণের চিহ্ন মুঝে যাবার আগেই ডাক্তারি পরীক্ষা করান৷

৩. হাসপাতালে যাওয়ার পর যদি ‘এমারজেন্সিতে’ কারো সাথে এ বিষয়ে কিছু বলতে না চান, তাহলে শুধু একজন স্ত্রী বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলতে হবে’ – এ কথা বললেও চলবে৷

৪. ধর্ষণকারী যেসব জিনিসের সংস্পর্শে এসেছে, তার সব তুলে রাখুন৷ যেমন অন্তর্বাস, প্যাড ইত্যাদি৷ সম্ভব হলে এ সব জিনিসের ছবিও তুলে রাখুন৷

৫. নিজেকে দোষী ভাববেন না৷ কারণ যে ধর্ষণের মতো জঘণ্যতম কাজটি করেছে, শুধু সে একাই এর জন্য দায়ী, অপরাধী৷ আপনি নন৷

অবশ্য বলা বাহুল্য, এর জন্য শুধু ডাক্তারি বা মনস্তাত্ত্বিক সাহায্য ছাড়াও প্রয়োজন পরিবার, বন্ধু-বান্ধব এবং সমাজের বন্ধুবৎসল আচরণ৷

লেখক সাংবাদিক ও সমাজকর্মী।

Close