জাতীয়শিরোনাম

পুলিশি পাহারায় ধর্ষণবিরোধী লংমার্চে দফায় দফায় হামলা

ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতিসহ আহত ২০

বরেন্দ্র বার্তা ডেস্ক: ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে অনুষ্ঠিত লংমার্চে পুলিশি পাহারায় স্থানীয় ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীরা দফায় দফায় হামলা চালিয়েছে বলে জানা যায়। হামলায় বিভিন্ন ছাত্র সংগঠণের কেন্দ্রীয় নেতাসহ প্রায় ২৫জন আন্দোলনকর্মী আহত হয়েছে বলে আন্দোলনকর্মীরা দাবি করেছে।

ফেনীতে সমাবেশের পর সেখানকার স্থানীয় যুবলীগ-ছাত্রলীগ কর্মীরা এ হামলার ঘটনা ঘটায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। পাশেই পুলিশ অবস্থান করলেও পুলিশ এ হামলায় বাঁধা না দিয়ে বরং সহায়তা করেছে বলেও আন্দোলনকর্মীরা অভিযোগ করেছেন।

পরবর্তীতে আরোও তিন দফায় এ হামলা সংঘটিত হয়ে মোট চার দফায় এ হামলা সংঘটিত হয়েছে বলে আমাদের প্রতিনিধি নিশ্চিত করেছেন।

আন্দোলনকারীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে যে, “এই হামলায় আশা, সাদাত মাহমুদ, সায়মা সেলিম আনিকা, মাঈন আহমেদ, জাওয়াদুল ইসলাম, রাইসা, নিজামুদ্দিন হৃদয়, আসমা, ইমা, রাফিন, মাহমুদা দীপা, স্বর্ণা, তাহমিদা, মাহির শাহরিয়ার রেজা, জহর লাল রায়, তুবাসহ প্রায় ২৫ জন আন্দোলনকর্মী আহত হয়। এমনকি তাদের চিকিৎসার জন্য ন্যুনতম ব্যবস্থাটুকুও করা সম্ভব হচ্ছে না।”

এ বিষয়ে ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক অনিক রায় অভিযোগ করেন, “সমাবেশ শেষে ফেরার পথে দুই দফা হামলা করেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। পুলিশ সেখানে উপস্থিত থাকলেও আমাদের রক্ষা করার চেষ্টা করেনি। উল্টো আমাদের কর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে।”

এ বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাবেদ হায়দার জর্জকে একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি ধরেননি। ফেনীর সহকারী পুলিশ সুপার মাঈনুল ইসলাম হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে আরটিভি নিউজকে বলেন, আমি ওই স্পটেই আছি। পরে কথা বলছি।

উল্লেখ্য, গতকাল ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে এ রাজধানীর শাহবাগ থেকে নোয়াখালির উদ্দেশ্যে এ লংমার্চের যাত্রা শুরু করে। নারায়নগঞ্জ, সোনারগাঁও, চান্দিনা, কুমিল্লা হয়ে গতকালই তারা ফেনীতে এসে উপস্থিত হয়। আজকে তাদের নোয়াখালি এসে শেষ সমাবেশ অনুষ্ঠিত করার কথা।

এদিকে এ হামলার নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), বাম গণতান্ত্রিক জোটসহ বিভিন্ন বাম-প্রগতিশীল রাজনৈতিক দল ও গণসংগঠণ বিবৃতি দিয়েছে ও আজ বিকালে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বলে জানা যায়।
বরেন্দ্র বার্তা/অপস
সুত্র: একতা টিভি লাইভ

Close