শিরোনাম-২সাহিত্য ও সংস্কৃতি

হুমায়ূন সিরাজের কবিতা ’জীবনে যেন তিমির পরে প্রভাত’

প্রতি শীতের শেষ বিকালে বসন্তের ওই মেঘের ঘন ঘটে
নদীর দু’কুলের যে দৃশ্য গোলাপের ওই সৌরভে রঙে
গোধুলী বিদায়ে শিশিরের ছন্দে ওই যে পান্ডুর উদয় রঙ চটে
ভিতরে যে ময়না ধান ক্ষেতের সুদূর ওই পথে দিশায় রঙ্গে
না বৃত্তাকার ওই পথে, এই আম গাছের সারি মানচিত্রে
অথবা রসের সূত্রের তন্তুর শব্দে এই দৃশ্য একটি চিত্রিত গ্রামে
এবং আকাশে তারাদের মেলা এই মহাশূন্যে নভ মন্ডলে
কোনটি হারানো, যে বিষ্ণু সূর্যের খোঁজে আর এক নতুন রাজাপুরিতে পাড়ি?
যখন সোনার কাঠির ঐ স্পর্শে অথবা যেখানে যাদুর ওই নভ রহস্যে
যদি একশ বছর পর আজ আকাশে জাগে হ্যালির ধূমকেতু
উপরে অন্ত গোধুলী গড়িয়ে ধুসর পান্ডুলিপির আভায় ওই মৈত্রে
যেন মন কৃষ্ণবর্ণের এই রূপে আগমন বার্তায় ওই তারাদের ইচ্ছে
প্রতি উদ্দ্যমি প্রযুক্তির ওই চিত্রে প্রস্বরে প্রচ্ছায় ত্রিমাত্রিকে
এটি ওই দ্যোতক স্বরে সাদা মেঘে রঙধনু রঙে জ্যোৎস্না
কিন্তু এক নতুন দিগন্তের সূচনা যেন এই মনামী উচ্চারণে
সকল ঊর্মি মালায় ও মেঘমালায় ওই তরঙ্গে দৈর্ঘ্যে ভাষিক চিত্র
মহূর্তে উন্মোচিত এই উম্মেষের নব জাগরনে জয়তু বোলে।

Close