মহানগরশিরোনাম-২

রাজশাহীতে মোফাজ্জলের মৃত্যুর ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পবা উপজেলার হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) কমপ্লেক্সের একটি কক্ষে আটক যুবক মোফাজ্জল হোসেনের (২৬) মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। রোববার রাতে নিহতের ভাই উজ্জল আলী বাদি হয়ে এ মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন দামকুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাজহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, মামলায় হরিপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বজলে রেজবী আল হাসান মুঞ্জিলসহ চারজনের নাম উল্লেখ্য করে ১৯ জনকে আসামী করা হয়েছে। অন্য আসামীরা হলেন, নিহত মোফাজ্জলের শ্বশুর রফিকুল ইসলাম, স্ত্রী রিয়া খাতুন ও শাশুড়ি সুদানা বেগম। মামলায় ১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

ওসি বলেন, নিহতের শ্বশুর রফিকুল ইসলামকে প্রধান ও ইউপি চেয়ারম্যান মুঞ্জিলকে দ্বিতীয় আসামী করা হয়েছে। আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানান ওসি। রোববার দুপুর ১২টার দিকে মোফাজ্জালের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠান পুলিশ। নিহত মোফাজ্জল হোসেন রাজশাহীর তানোর উপজেলার চান্দুড়িয়া ইউনিয়নের যুগলপুর গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে বলে জানা গেছে।

দুই সপ্তাহ আগে ভ্যানচালক মোফাজ্জল হরিপুর ইউনিয়নের নলপুকুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর স্ত্রী বাবার বাড়ি চলে আসায় তাকে ফিরিয়ে নিতে দুইদিন আগে শ্বশুরবাড়ি এসেছিলেন তিনি। পরে তাকে ইউপি কমপ্লেক্সে আটকে রাখা হয়।
দামকুড়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম আরো বলেন, লেপের ছেঁড়া অংশের কাপড় দিয়ে জানালার সঙ্গে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় তার লাশ পাওয়া গেছে। আগের রাত থেকে ওই কক্ষে তাকে আটকে রাখা হয়েছিল। এটি হত্যা না আত্মাহত্যা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে নিহতের শরীরে কিছু আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তিনি কীভাবে মারা গেছেন তা ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য গত শনিবার রাতে মোফাজ্জাল হোসেনকে হরিপুর ইউনিয়নের একটি রাখা হয়। সেখানেই লেপের ছেঁড়া কাপড় দিয়ে জানালার সঙ্গে ফাঁস দেয়া অবস্থায় মোফাজ্জলের লাশ পাওয়া যায়।

বরেন্দ্র বার্তা/ ফকবা/ নাসি

Close