গোদাগাড়ি

কাঁকনহাট পৌর আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের বর্ধিত সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক: কাঁকনহাট পৌর আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে বুধবার পৌর অডিটরিয়ামে বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। কাঁকনহাট পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কাঁকনহাট পৌর মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ মাস্টার এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তানোর-গোদাগাড়ী আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন গোদাগাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ, গোদাগাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ আব্দুল আওয়াল রাজু, কাঁকনহাট পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ন কবীর ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন শওকত।
এছাড়াও গোদাগাড়ী উপজেলা যুবদলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ পারভেজ বিপ্লব, কাঁকনহাট পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, পৌর ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুর রহমান বকুল, পৌর কৃষকলীগের সভাপতি ও ২নং ওয়ার্ড নবনির্বাচিত কাউন্সিলর কল্লোল হোসেন, পৌর মহিলা লীগের সভাপতি আশরাফুন নেসা পরী ও সাধারণ সম্পাদক মর্জিনা বেগমসহ উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের অন্যান্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যের শুরুতেই ত্যাগ ও মহানুভবতা দেখানোর জন্য বর্তমান মেয়র আব্দুল মজিদকে ধন্যবাদ জানান। সেইসাথে তিনি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের রুপকার বর্তমান সরকার। এই সরকারের উন্নয়নের কারনেই দেশের প্রতিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জয়জয়কার হচ্ছে। আসছে পৌর নির্বাচনে রাজশাহীর সব গুলো আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয় লাভ করবেন। এছাড়া আর দুই মাস পরে শুরু হবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। এই নির্বাচনেও দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করতে আওয়ামী নেতৃবৃন্দ ও জনগণকে অনুরোধ করেন তিনি।
তিনি আরো বলেন, বরেন্দ্র অঞ্চলে এখন রাস্তার কোন সমস্যা নাই। সরকার অগ্রাধিকার ভিত্তিত্বে এই অঞ্চলের জনগণের সুবিধা ও ব্যবসা বানিজ্যের প্রসার লাভের জন্য প্রতিটি রাস্তা বর্ধিতকরণ এবং সংস্কার করছেন। সেইসাথে শিক্ষার জন্য হজার হাজার কোটি টাকা এই বরেন্দ্র অঞ্চলে সরকার প্রদান করছেন। তিনি এই এলাকার মানুষের কষ্টের কথা বলায় বতর্মান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দয়াপরায়ন হয়ে এই সকল অনুদান প্রদান করে চলেছেন। শুধু তাইনয় গোদাগাড়ী উপজেলাকে শতভাগ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে নিয়ে এসেছেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
প্রধান অতিথি আরো বলেন, চলতি মাসের ১৬ তারিখ কাঁকনহাট নির্বাচন হয়ে গেছে। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এটা হয়েছে বর্তমান মেয়র আব্দুল মজিদ ও তাঁর কারনে। মজিদ এই পৌরসভাকে আওয়ামী লীগের ঘাঁটিতে পরিনত করেছেন। আর মজিদকে তিনিই আওয়ামী লীগে নিয়ে এসেছেন বলেন জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনে পৌরসভায় প্রবেশ করতে না পারলেও তিনি ইউনিয়নের বিভিন্ন সভায় নৌকার প্রার্থীর জন্য ভোট প্রার্থনা করেন। কিন্তু নবনির্বাচিত মেয়রের হয়ে তিনি এবং তাঁর লোকজন কাজ করেননি বলে লোকমুখে শুনছেন তিনি। এই ভুল দ্রুত সময়ের মধ্যে ভেঙ্গে যাবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। বক্তব্য শেষে প্রধান অতিথি আবু সুুফিয়ানকে সভাপতি এবং শাকিল আহম্মেদকে সাধারণ সম্পাদক করে পৌর ছাত্রদলের কমিটি ঘোষনা করেন।
সভাপতির বক্তব্যে মেয়র বলেন, তিনি দীর্ঘ আঠার বছর এই পৌরবাসীর খেদমত করে যাচ্ছেন। এবার দল তাঁকে মনোনয়ন না দেয়ায় দলের প্রতি আনুগত্য, সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধীর প্রতি সম্মান রেখে তাঁর নির্দেশে তিনি বৈধ মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নবনির্বাচিত মেয়রের হয়ে ভোট প্রার্থনা করেছেন। অথচ নির্বাচনের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁকে নিয়ে নানা বিভ্রান্তিকর পোষ্ট দেয়া হচ্ছে। যা সঠিক নয়। দলের সঙ্গে আছেন এবং আগামীতেও থাকবেন বলে জানান মেয়র মজিদ।
বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close