শিরোনাম-২সাহিত্য ও সংস্কৃতি

যদি তোকে ভুলে যাই জেরুজালেম


[অনূদিত দুটি কবিতা বিখ্যাত ইহুদি কবি এহুদা আমাচাইয়ের। দুটি ফিলিস্তিন কবি মাহমুদ দারবিশের। এরা দুজনই প্রয়াত। একটি করে কবিতা আছে একালের দুই ফিলিস্তিন কবি সালেম জুবরান এবং তওফিক জাইয়াদের]

মাহমুদ দারবিশ

তিন নম্বর স্তোত্র

সেদিন, যেদিন আমার কথা ছিল

মাটি

আমি নিমের শিমের বন্ধু ছিলাম

সেদিন, যেদিন আমার কথা ছিল

ক্ষুব্ধ

আমি শিকলের বন্ধু ছিলাম

সেদিন, যেদিন আমার কথা ছিল

পাথর

আমি স্রোতধারা বন্ধু ছিলাম

সেদিন, যেদিন আমার কথা ছিল

তিক্ত আপেল

আমি আশাবাদীদের বন্ধু ছিলাম

সেদিন, যেদিন আমার কথা হলো

মধু

মৌমাছি আমার মুখ

ঢেকে দিল।

আমি সেখান থেকে এসেছি

আমি সেখান থেকে এসেছি, আমার স্মৃতি আছে

মরণশীলরা যেমন জন্মগ্রহণ করে, আমার একজন মা আছে

আর অনেক জানালার একটি বাড়ি।

আমার ভাইয়েরা আছে, বন্ধু আছে

আর শীতল জানালাসহ একটি প্রকোষ্ঠ

আমারটা ঢেউ, গাঙচিল ছিনিয়ে নিয়েছে

আমার নিজের মতামত আছে

আর একটি বাড়তি ঘাসের পাতা

তরবারি আর জ্যান্ত দেহ পাথুরে টেবিলে রাখার আগে

আমি এ জমিনের উপর দিয়ে উঠেছে

আমি সেখান থেকে এসেছি, আমি আকাশকে

তার মায়ের কাছে তুলে ধরি

যখন আকাশ তার মায়ের জন্য ফুঁপিয়ে কাঁদে

আমি নিজেকে প্রত্যাবর্তনমুখী মেঘের কাছে

পরিচিত করাতে আমিও ফুঁপিয়ে কাঁদি

আমি রক্তের সহচর সবগুলো শব্দ শিখেছি

যেন আমি আইন ভাঙতে পারি।

আমি সবগুলো শব্দ শিখেছি, এবং সেগুলো ভেঙেছি

একটি শব্দ তৈরি করতে: আবাসভূমি।

এহুদা আমাচাই

আমি যদি তোকে ভুলে যাই জেরুজালেম

আমি যদি তোকে ভুলে যাই জেরুজালেম

তাহলে আমার ডান বিস্মৃত হোক

আমার ডান বিস্মৃত হোক, বাম স্মরণ রাখুক

আমার বাম স্মরণ রাখুক তোমার ডান বন্ধ হোক

আর গেটের কাছে এসে তোমার মুখ খুলক।

আমি জেরুজালেম স্মরণ রাখব

আর অরণ্যকে ভুলে যাব, আমার ভালোবাসা মনে রাখবে

সে নারীর চুল খুলবে, আমার জানালা বন্ধ করতে

আমার ডান ভুলে যাবে আমার বাম ভুলে যাবে।

পশ্চিমের বাতাস যদি না বয়

আমি কখনো দেয়ালকে ক্ষমা করব না
কিংবা সমুদ্রকে কিংবা আমাকে
আমার ডান ভুলে গেলে

আমার বাম ক্ষমা করে দেবে

আমি পানি ভুলে যাব
আমি মাকে ভুলে যাব
আমি যদি তোকে ভুলে যাই, জেরুজালেম
আমার রক্ত বিস্মৃত হোক
আমি তোমার স্পর্শ করব
আমার নিজেকে ভুলে যাব
আমার কণ্ঠস্বর বদলে যায়
দ্বিতীয় ও শেষবারের মতো
ভয়ডর স্বরের কাছে
কিংবা নিঃস্তব্ধতায়।

জেরুজালেমের দৃশ্য

পুরনো শহরের ছাদের ওপর

বিকালের সূর্যালোকে ধোয়া কাপড় ঝুলছে

আমার শত্রু এক নারীর সাদা চাদর

আমার শত্রু এক পুরুষের তোয়ালে

আর ভুরুর কাছে ঘাম মুছে নেয়

পুরনো শহরের আকাশে

একটি ঘুড়ি

সুতোর অন্য প্রান্তে

একটি শিশু

দেয়ালের কারণে

আমি দেখতে পাই না

আমাদের অনেক পতাকা ওড়াতে হয়

তাদের অনেক পতাকা ওড়াতে হয়

তারা সুখে আছে আমাদের দেখাতে চায়

আমরা সুখে আছি তাদের দেখাতে চাই।

সালেম জুবরান

পরবাস

সীমান্ত পথ ধরে সূর্য হেঁটে যায়

বন্দুক থেমে থাকে

তুলকারেমে একটি স্কাইলাক

সকালের গান জুড়ে দেয়

তারপর কিবুজের একটি পাখির সঙ্গে

খানা খেতে উড়ে চলে যায়।

গুলিরেখা বরাবর

একটি নিঃসঙ্গ গাধা হেঁটে যায়

প্রহরার স্কোয়াড দেখেও দেখে না

সীমান্ত দেয়ালের একটি ফালি

দৃশ্যকে কালচে করে দেয়।

তওফিক জাইয়াদ

অসম্ভব

সুঁইয়ের চোখের ভেতর দিয়ে

হাতি ঠেলে দেয়া তোমার জন্য খুব সহজ

মহাকাশে ভাজা মাছ ধরো

সূর্য নেভাও ফুত্কারে

বাতাস বন্দি করে রাখো

কুমিরকে দিয়ে কথা বলাও;

তা বরং সহজ বিশ্বাসের আগুনে আভা

নির্যাতনে ধ্বংস করার চেয়ে

অথবা আমাদের লক্ষ্যের দিকে

আমাদের মার্চের ওপর চোখ রাখার চেয়ে—

এই তো কেবল একটি পদক্ষেপ।


বরেন্দ্র বার্তা/অপস
কৃতজ্ঞতা: বণিক বার্তা

Close