শিরোনাম-২সাহিত্য ও সংস্কৃতি

দ্বিজেন্দ্রনাথ ব্যানার্জীর “অজ্ঞাতবাস” মহাকাব্যের মোড়ক উন্মোচন

ষ্টাফ রির্পোটার : “বাংলা সাহিত্য অঙ্গনে “অজ্ঞাতবাস” নামের একটি মহাকাব্য (অমিত্রাক্ষর) প্রকাশের মধ্য দিয়ে বাংলা মহাকাব্য ধারাকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিলেন দিনাজপুর চিরিরবন্দরের কৃতি ব্যক্তিত্ব দ্বিজেন্দ্রনাথ ব্যানার্জী।

বাংলা সাহিত্যে মহাকাব্যের সংখ্যা অনেক কম। আর অনেক বড় বড় কবিরাও এমন সাহস দেখাতে পারেননি যা আজ করে দেখালেন দ্বিজেন্দ্রনাথ ব্যানার্জী। একটি অনলাইন মিটিংএ বাংলাদেশের সাহিত্য জগতের বিখ্যাত ব্যক্তি ছাড়াও দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্বভারতী শান্তিনিকেতনের বেশ কয়েকজন বাংলার অধ্যাপক যুক্ত থেকে বইটির মোড়ক উন্মোচন ও বিশদ আলোচনা অনুষ্ঠান করলেন গত ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭.৩০ মিনিটে। এতে অনেকেই মন্তব্য করেন যে, মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘মেঘনাদবধ’ মহাকাব্যের পর এটিই হতে যাচ্ছে একটি সার্থক মহাকাব্য। যা চিরিরবন্দর তথা দিনাজপুরবাসী হয়ে কতটা আনন্দ ও গর্বের তা সহজেই অনুমেয়।

বছরের পর বছর শ্রমের ফসল একটি মহাকাব্য, যেমনটি জানালেন মহাকবি দ্বিজেন্দ্রনাথ ব্যানার্জী। জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে পড়ুক, সাহিত্য চর্চায় নতুন প্রজন্ম মনোনিবেশ করুক তা একান্ত কাম্য এই মহাকবির। বইটি উৎসর্গ করেছেন তাঁর স্ত্রী, তিন ডাক্তার ছেলের প্রয়াত জননীকে।
তিনি রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের প্রাক্তন শিক্ষক ও জাতীয় পর্যায়ে স্বর্ণ পদক প্রাপ্ত শ্রেষ্ঠ শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন।
বরেন্দ্র বার্তা/নাসি

Close